তিনি যেন লিঙ্গটা চেপে ধরলেন যোনীর ভেতরে বাংলা গল্প চটি ।

আমাদের গ্রামের বাড়ীতে ছোট দেবরের বিয়েতে গিয়েছিলাম।  সেখানে অনেক গেস্ট। রাতে ঘুমাবার জায়গা নাই। সকলে ফ্লোরে ঘুমাবার জায়গা করল। আমার শ্বাশুড়ী কিচেনের কাছে একটা ছোট রুমে ঘুমাবার জায়গা করল। শ্বশুর আমার স্বামী সামনের রুমে অন্য পুরুষ গেস্টদের সাথে ঘুমাচ্ছেন। এই সময় একজন মহিলা গেষ্ট এসে আমার শ্বাশুড়ীকে তার কাছে ঘুমাতে রিকোয়েষ্ট করল। শাশুড়ী তার কাছে ঘুমাতে গেল আর আমাকে তার জায়গায় স্টোর রুমে ঘুমাতে বলল। আমি শ্বাশুড়ীর কথামত স্টোর রুমে তার জায়গায় ঘুমাতে গেলাম। আমি একা ঘুমাচ্ছি তাই আমার পেন্টি ও ব্রা খুলে শুধু ম্যাকসি পরে ঘুমিয়ে পড়লাম। মিনা আমার শ্বাশুড়ীর নাম। গলা শুনেই বুঝলাম আমার শ্বশুর,প্রচণ্ড রাশভারী লম্বা চওড়া আর রাগী পুরুষ। ভয়ে আমার গলা শুকিয়ে কাঠ আমি ফিস ফিস করে বললাম’বাবা আমি মিনা না,সবিতা আপনার বৌমা”। হা ভগবান”কাতর স্বরে স্পষ্টত আৎকে উঠলো শ্বশুর সেই সাথে আমার যোনীগর্ভে প্রবিষ্ট তার লিঙ্গটা যেন আরো দৃড় আর দির্ঘ হয়ে উঠলো তার।
তুমি এখানে কেন”ফিসফিস করে ধমকে উঠলেন শ্বশুর।কোনোমতে বললাম,মা আমাকে এখানে শুতে বলেছেন” বললেন, ঠিক আছে ভুল হয়ে গেছে, তুমি কাউকে এই কথা বলবেনা।
আমি বললাম, আচ্ছা।

উনি বললেন আমি এখন যাই, বলেও আমার উপর ওভাবেই থাকলেন,যেন সিদ্ধান্ত নিতে পারছেন না, ইতিমধ্যে আমার যোনীতে তার লম্বা মোটা লিঙ্গটা সম্পুর্ণ প্রবিষ্ট হয়েগেছে। আমার পরিচয় পাওয়ার পরও ওটির দৃঢ়তা এতটুকুও কমেনি বরং মনে হল তার লিঙ্গ আরো শক্ত ও ফুলে আরো মোটা হয়ে আমার যোনীর ভিতর এঁটে বসেছে। লজ্জায় ভয়ে ঘেমে নেয়ে উঠেছি অথচ যোনীটা রসে ভরে উঠছে আমার সেইসাথে আমার আজান্তেই আমার যোনীর ঠোঁট দুটো তার দৃড় লিঙ্গটাকে কামড়ে ধরছে যেন। উনি আবার বললেন যাই, বলেও আমার উপর থেকে উঠলেন না বরং আমার মনে হল তিনি যেন লিঙ্গটা চেপে ধরলেন যোনীর ভেতরে, এদিকে আমি কাঠ হয়ে পড়ে আছি,একে শ্বশুর তারউপর রাশভারী রাগী লোক সকলেই তাকে ভয় পায়।

কিন্তু তা সত্বেও শক্ত সামর্থ্য পুরুষের লম্বা লিঙ্গের স্পর্ষে অন্ধকার ঘরে সত্যি বলতে কি অন্যরকম একটা নিষিদ্ধ ইচ্ছায় ওটাকে ছাড়তে ইচ্ছে করছিলনা। উনি আবার বললেন আমি এখন যাই কাউকে এই কথা বলবে না। আমি বললাম আচ্ছা।’ উনি কোমরটা একটু উচু করে লিঙ্গটা অর্ধেক যোনীর ভিতর থেকে বাহির করলেন।কেন জানিনা নিজের অজান্তেই আমি উরুদুটো সংঘবদ্ধ করে ফেলেছি,ওনার অর্ধেক লিঙ্গ প্রবিষ্ট আমি অপেক্ষায় আছি কখন বের করে নেবেন,কিন্তু উনি বের করলেন না বরং সম্পুর্নটাই আবার ঠেলে ঢুকিয়ে দিলেন।ভয়ে লজ্জায় শিউরে উঠলাম আমি,এতক্ষণ যা ঘটছিল তা নিছকই দুর্ঘটনা, কিন্তু উনি এখন যা করলেন তা সম্পুর্ন সদিচ্ছায় জেনেশুনে। এর মধ্যে ধারাবাহিক ছন্দে কোমর ওঠা নামা শুরু করেন তিনি,আমার যোনীতে তার লিঙ্গের আসা যাওয়ায় একটা বিশ্রী পিচ পিচ শব্দ হচ্ছে দেখে পা দুটো একটু মেলে দিলাম আমি।লাগছে নাতো’আমার কানে ফিস ফিস করে বললেন শ্বশুর।

জবাবে কিছু বললাম না আমি।এর মধ্যে বিশাল শরীর দিয়ে যেন আমাকে পিসে ফেলতে চাইছিলেন তিনি ম্যাকসিটা পেটের কাছে গোটানো ছিল,হাত বাড়িয়ে উপরে তুলে দিয়ে আমার স্তন উন্মুক্ত করে দিলেন।এর মধ্যে একবার রাগমোচোন হোয়ে গেছে আমার,দ্রুত কোমর দোলাচ্ছেন শ্বশুর মনে হয় বির্যপাত ঘটবে তার’ঠিক এসময় বাইরে শব্দ হল, আমার উপর স্থির হয়ে গেলেন শ্বশুর। তার লিঙ্গটা সম্পুর্ন আমার যোনীতে প্রবিষ্ট পরনের ধুতি খুলে উলঙ্গ হয়ে আমার সাথে সঙ্গম শুরু করেছিলেন, আমার পরনেও বলতে গেলে কিছুই নাই,শ্বশুর দরজায় খিল দিয়েছে কিনা জানিনা যদি কেউ চলে আসে কেলেংকারীর শেষ থাকবে না। কেউ একজন বাথরুমে গেল,’ ফিস ফিস করে বললেন উনি।

এখন নড়বেন না,কানে কানে বললাম আমি, নইলে কেউ টের পেয়ে যাবে।আচ্ছা,ফিসফিস করে সুবোধ ছেলের মত আমার কথায় সায় দিলেন শ্বশুর।আমি কান পেতে আছি,যে বাথরুমে গেছে সে এখনো বের হয়নি।এর মধ্যে আবার করতে শুরু করেছেন উনি।একটু বিরক্ত লাগে আমার বাইরের লোকাটা এখনো ঘরে যায়নি যেকোন সময় বিপদ ঘটতে পারে,এ অবস্তায় যেন তর সইছে না মানুষটার। আমার মনের কথা বুঝেই নাকি’চিন্তা কোরোনা দরজায় খিল দেয়া আছে’দ্রুত শ্বাস নিতে নিতে উত্তেজিত গলায় ফিসফিস করে বলেন শ্বশুর।যাক,এর মধ্যে যে বাথরুমে গেছিল সে বেরুনোর শব্দ পেয়েছি,বেশ কিছুক্ষণ বাইরেকোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে অনেকটা নিশ্চিন্ত হই।

এদিকে পুর্নদ্যমে আমাকে সঙ্গম করছেন শ্বশুর আমার খোলা দুই স্তনের চুড়া পালাক্রমে চুষেও দিয়েছেন বেশ কবার।ফ্যান থাকলেও ঘেমে নেয়ে উঠেছি আমরা দুজনি।আমার পরনের ম্যাকসিটা মাথা গলিয়ে বের করে নেন উনি।বাধা দেই ননা আমি,হচ্ছে যখন ভালোভাবেই হোক জিনিষটা,আর বন্ধ এই ঘরে মাঝরাতে কেউ আসার কোনো সম্ভাবনা নেই।দ্রুত হয়ে ওঠে শ্বশুরের কোমরের গতি।হাঁটু ভাজ করে উরু মেলে দিয়ে নিজেও সক্রিয় হয়ে উঠি আমিও।

এই প্রথম আমাকে চুম্বন করেন উনি,আলতো করে ওনার চওড়া খোলা পিঠ জড়িয়ে ধরে চুম্বনের সাড়া দিতেই কাতর গলায়’বাইরে ফেলতে হবে নাকি’জিজ্ঞাসা করেন।লাগবে না লাইগেশন করা আছে,ভিতরেই দিন বলতেই,দ্রুততর হয়ে ওঠে ওনার কোমর সঞ্চালন।সেষ মুহুর্তে গুঙিয়ে উঠে আমার যোনীগর্ভে লিঙ্গ চেপে ধরে বির্যপাত করেন।

যোনীর গভীরে বির্যের স্পর্ষে রাগমোচোন ঘটে আমারো।বেশ কিছুক্ষণ ওভাবেই শুয়ে থাকি আমরা,এসময় আমার স্তন টিপে ধরে আমার ঠোটে চুম্বন করেন শ্বশুর।এরপর নিজেকে বিচ্ছিন্ন করে দ্রুত কাপড় পরে শ্বশুর,আমিও ম্যাকসিটা পরে নেই। শ্বশুর যাই’বলতেই মাথা নেড়ে হ্যা বলি।আস্তে করে দরজার খিল খুলে ঘাড় ঘুরিয়ে আমাকে একবার দেখে আস্তে করে বেরিয়ে যান রাতের অন্ধকারে।

Copyright @ 2016 Kharapbd.com Frontier Theme